বাঁচা-মরার ম্যাচে বাংলাদেশের লক্ষ্য ১৪৩

প্রকাশিত: ৬:১৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৯, ২০২১
বাঁচা-মরার ম্যাচে বাংলাদেশের লক্ষ্য ১৪৩

অনলাইন ডেস্ক : বাঁচা-মরার ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে আজ জিততে হলে বাংলাদেশের প্রয়োজন ১৪৩ রান। তাসকিন-শরিফুলের দুর্দান্ত বোলিংয়ে শক্তিশালী ক্যারিবিয়ানদের ১৪২ রানেই থামিয়ে রাখল বাংলাদেশ। এদিন পাওয়ার প্লেসহ মাঝের ওভারগুলোতে দুর্দান্ত বল করলেও শেষের দিকে খাপছাড়া হয়ে যায় মোস্তাফিজ-মেহেদিরা।

নিকোলাস পুরান আর ২০তম ওভারে পোলার্ডের ছোট্ট ঝড়ে লড়াই করার পূঁজি গড়ে ক্যারিবিয়ানরা।

বাঁচা-মরার ম্যাচে টস জিতে বোলিংয়ে দারুণ শুরু করে বাংলাদেশ। অবশ্য ম্যাচে পাঁচটি সুয়োগ মিস না হলে আরো অল্পতেই ক্যারিবিয়ানদের আটকে রাখা সম্ভব হতো।

বাঁচা-মরার ম্যাচে বাংলাদেশের লক্ষ্য ১৪৩

তাসকিন-শরিফুলের দুর্দান্ত বোলিংয়ে শক্তিশালী ক্যারিবিয়ানদের ১৪২ রানেই থামিয়ে রাখল বাংলাদেশ। এদিন পাওয়ার প্লেসহ মাঝের ওভারগুলোতে দুর্দান্ত বল করলেও শেষের দিকে খাপছাড়া হয়ে যায় মোস্তাফিজ-মেহেদিরা। নিকোলাস পুরান আর ২০তম ওভারে পোলার্ডের ছোট্ট ঝড়ে লড়াই করার পূঁজি গড়ে ক্যারিবিয়ানরা।

আজ বাঁচা-মরার ম্যাচে টস জিতে বোলিংয়ে দারুণ শুরু করে বাংলাদেশ। অবশ্য ম্যাচে পাঁচটি সুয়োগ মিস না হলে আরো অল্পতেই ক্যারিবিয়ানদের আটকে রাখা সম্ভব হতো।

ইনিংসের শুরু থেকেই উইন্ডিজকে চাপে রাখতে সক্ষম হয় বাংলাদেশ দল। প্রথম ১৫ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে মাত্র ৮৪ রান করার সুযোগ পায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। কিন্তু এরপর আর লাগাম ধরে রাখতে পারেনি বাংলাদেশ।

শেষ দিকে রীতিমতো ব্যাটিং তাণ্ডব চালান নিকোলাস পুরান ও রোস্টন চেজ। ২ রানে লাইফ পাওয়া নিকোলাস পুরান ফেরেন ২৩ বলে এক চার ও ৪টি দৃষ্টিনন্দন ছক্কায় দলীয় সর্বোচ্চ ৪০ রান করে।

২৭ রানে লাইফ পাওয়া রোস্টন চেজ ফেরেন ৩৯ রানে। নিকোলাস পুরান ও রোস্টন চেজের ব্যাটিং তাণ্ডবের কারণেই ৭ উইকেটে ১৪২ রান তুলতে সক্ষম হয় উইন্ডিজ।

শুক্রবার আরব আমিরাতের শারজা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে প্রথমে ব্যাটিংয়ে পাঠায় বাংলাদেশ দল।

ইনিংসের তৃতীয় ওভারে বোলিংয়ে এসেই সাফল্য পান মোস্তাফিজুর রহমান। এই কাটার মাস্টারের বলে মুশফিকুর রহিমের বলে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন ক্যারিবীয় তারকা ওপেনার এভিন লুইস।

দলীয় পঞ্চম আর নিজের দ্বিতীয় ওভারে বোলিংয়ে এসে ক্যারিবীয় ব্যাটিং দানব ক্রিস গেইলকে বোল্ড করেন মেহেদি হাসান। ৪.২ ওভারে দলীয় ১৮ রানে সাজঘরে ফেরার আগে ১০ বলে মাত্র ৪ রান করার সুযোগ পান গেইল। এরপর ৬.৪ ওভারে দলীয় ৩২ রানে সিমরন হেটমায়ারকে ক্যাচ তুলতে বাধ্য করেন মেহেদি হাসান।

১২.৩ ওভারে দলীয় ৬২ রানে রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে ফেরেন উইন্ডিজ অধিনায়ক কায়রান পোলার্ড। এরপর স্কোর বোর্ডে কোনো রান যোগ হওয়ার আগেই সাজঘরে ফেরেন তারকা অলরাউন্ডার আন্দ্রে রাসেল। নিজের বলে দুর্দান্ত ফিল্ডিং বরে রাসেলকে সাজঘরে ফেরান তাসকিন আহমেদ।

ব্যাটসম্যানদের এই আসা-যাওয়ার মিছিলে শেষ দিকে লড়াই করে যান রোস্টন চেজ ও নিকোলাস পুরান। তাকে অবশ্য ১৪তম ওভারেই সাজঘরে ফেরানোর সুযোগ তৈরি করেছিলেন সাকিব আল হাসান। তার বলে মিডউইকেটে ক্যাচ তুলে দিয়ে মেহেদি হাসানের কল্যাণে ২৭ রানে লাইফ পান রোস্টন চেজ। এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে ৪৬ বলে ৩৯ রান করে ফেরেন রোস্টন।

সাকিব ওই ওভারেই মাত্র ২ রানে নিকোলাস পুরানকে আউট করার সুযোগ তৈরি করেন। দাউন দ্য উইকেটে খেলতে গিয়ে মিস করেন নিকোলাস পুরান। কিন্তু উইকেটকিপার লিটন স্টাম্পিং মিস করেন।

সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে ২৩ বলে এক চার আর ৪টি ছক্কায় ৪০ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন নিকোলাস। ১৮.১ ওভারে দলীয় ১১৯ রানে শরিফুলের শিকার হয়ে ফেরেন তিনি। ঠিক পরের বলে ব্যাটিং তাণ্ডব চালিয়ে যাওয়া রোস্টন চেজকেও ফেরান শরিফুল। সাজঘরে ফেরার আগে ৪৬ বলে ৩৯ রান করেন তিনি।

Facebook Notice for EU! You need to login to view and post FB Comments!