বাণিজ্যিকভাবে লিচুর চাষ ঝিনাইগাতীতে

প্রকাশিত: ১:২৬ পূর্বাহ্ণ, মে ১৩, ২০২৩

অনলাইন ডেস্ক : শেরপুর জেলার সিমান্তবর্তী ঝিনাইগাতী উপজেলায় এবার বাণিজ্যিক ভাবে রসালো লিচুর চাষ হয়েছে। বাসা বাড়িতেও লিচুর গাছ লক্ষ্য করা যায়। একযুগ আগেও এই উপজেলায় লিচুর গাছ চোখে পড়তো না।

বাহিরের জেলা, উপজেলা থেকে লিচু আমদানী করে এখানকার চাহিদা মেটাতে হতো। বর্তমানে যুগের সাথে তাল মিলিয়ে দেশী লিচুর আমদানীতে ঝিনাইগাতী বাজার সয়লাভ হয়ে গেছে।

বিভিন্ন জাতের রসালো লিচু ক্রেতারা পেয়ে বেজায় খুশি। মৌসুমি এ ফল লিচু ক্ষেতে সুস্বাধু, মিষ্টি ও গুনগত মান খুবই ভালো। লিচু চাষি,শ্রাবণ,ছোট মিয়া ও আরিফ জানায় আমরা আগ্রহ করে লিচু চাষ করে এই উপজেলার চাহিদা মিটিয়ে অন্যান্য জেলা উপজেলায় রপ্তানী করে থাকি। প্রত্যেকেই ২০ থেকে ১০০ লিচুর চারা লাগিয়ে বাণিজ্যিক ভাবে চাষ শুরু করেছেন। লিচুর ভালো দাম থাকায় চাষিরাও খুশি হয়েছে।

কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ হুমায়ুন দিলদার জানায় এই উপজেলায় লিচু চাষের উপযোগি হওয়ায় দিন-দিন মানুষ লিচরু চাষে ঝুঁকে পড়ছে। বাণিজ্যিক ভাবে লিচু চাষ পুরো দমে শুরু হলে এখানকার বেকার ছেলেরা কর্মসংস্থানের সুযোগ পাবে পাশাপাশী চাষিরা ভালো লাভবান হয়ে স্বাবলম্বী হয়ে উঠবে।

লিচু বিক্রেতারা আতর মিয়া জানায়, আমরা এ উপজেলার ফাকরাবাদ, হলদিগ্রাম, আয়নাপুর, বনগাও, সন্ধ্যাকুরা ও পাহাড়ি এলাকাসহ বাসা বাড়িতে লিচু গাছের ফল ক্রয় করে বাজারে বিক্রি করছি এতে আমাদের যা আয় হয় তা দিয়ে মৌসুমি ব্যবসা করে সংসার চালাই।

যারা বেশী করে লিচুর গাছ লাগিয়েছে টাকার অভাবে তাদের লিচু ক্রয় করতে পারি না বিধায় ঢাকা থেকে পাইকাররা এসে ওই সমস্ত লিচু ক্রয় করে নিয়ে যাচ্ছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফারুক আল মাসুদ জানান রসালো লিচু চাষে যুবকরা পুরোদমে ঝুঁকে পড়লে তাদের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্ঠির পাশাপাশি সংসারের অভাব অনটন দূর হবে বলে তিনি বিশ্বাস রাখেন ।