স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগে স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

প্রকাশিত: ১০:৩২ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৪, ২০২২

অনলাইন ডেস্ক ; নড়াইলে স্ত্রী মমতাজ বেগমকে হত্যার অভিযোগে স্বামী মো. হেদায়েত শেখকে (৫৫) মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে তাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

সোমবার দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক মো. কেরামত আলি এ আদেশ দেন।

মামলায় দু’জনকে খালাস দেয়া হয়েছে।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত মো. হেদায়েত শেখ লোহাগড়া থানার পদ্মবিলা গ্রামের বাসিন্দা। তিনি পলাতক।

খালাসপ্রাপ্তরা হলেন- মো. খলিল শেখ ও আঞ্জুয়ারা বেগম।

মামলার বিবরণে জানা যায়, মামলার বাদি প্রথম স্ত্রী মমতাজ বেগমের ছেলে মো. রবিউল ইসলাম অভিযোগ করেন, ঘটনার ৫/৬ বছর আগে প্রথম স্ত্রী মমতাজ বেগম থাকা সত্ত্বেও হেদায়েত শেখ আঞ্জুয়ারা বেগমকে দ্বিতীয় বিবাহ করেন। বিবাহের পর থেকে দ্বিতীয় স্ত্রী আঞ্জুয়ারা বেগম প্রথম স্ত্রীকে খুন করে গুম করবে মর্মে হুমকি প্রদান করেন। ২০১২ সালের ০৩ ফ্রেরুয়ারি রাত ৮টার দিকে বাদিসহ তার মা রাতের খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। সকালে উঠে বাদি তার মাকে দেখতে না পেয়ে খোঁজাখুঁজি করতে থাকেন।

সে সময় বাদি তার বাবা হেদায়েতের লুঙ্গিতে রক্ত দেখে কারণ জানতে চান। তার বাবা বলেন সকালে তিনি একটি গরু জবাই করেছেন। এ বলে হেদায়েত শেখ ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী আঞ্জুয়ারা বেগম পালিয়ে যায়। পরে বাদিসহ তার আত্মীয়-স্বজনরা পদ্মবিলা বিলে জমির মধ্যে মমতাজ বেগমের মৃত দেহ পান। মৃতদেহের গলা কাটা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাত ছিল। এ ঘটনায় লোহাগড়া থানায় মামলা করেন।

মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা নিহতের স্বামী মো. হেদায়েত শেখ, মো. খলিল শেখ ও আঞ্জুয়ারা বেগমকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। আদালতে ১৪ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আসামি মো. হেদায়েত শেখের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সন্দেহাতীত ভাবে প্রমাণিত হওয়ায় তাকে মৃত্যুদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা এবং অপর দুই আসামিকে খালাস প্রদানের আদেশ দেন বিচারক।