হালুয়াঘাটে পানি নিষ্কাশনের অভাবে তলিয়ে গেছে কৃষকের স্বপ্ন

প্রকাশিত: ১২:৫৩ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৪, ২০২১
হালুয়াঘাটে পানি নিষ্কাশনের অভাবে তলিয়ে গেছে কৃষকের স্বপ্ন

হালুয়াঘাট (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট উপজেলার ভূবনকুড়া ইউনিয়নের জামগড়া গ্রামে প্রায় পঞ্চাশ বিঘা কৃষি জমির ফসল পানি নিষ্কাশনের অভাবে পানিতে তলিয়ে গেছে কৃষকের স্বপ্ন। পানি নিষ্কাশনের সুষ্ঠ ব্যবস্থা না থাকায় ফসলি জমিগুলো প্রায় কয়েক বছর ধরে তলিয়ে থাকার কারণে ওই এলাকার কৃষকরা বর্ষা মৌসুমে ফসল উৎপাদন করতে হিমসিম খেতে হচ্ছে।

শত কষ্টের পরেও ওইসব জমিতে কৃষকরা ধানের চারা রোপণ করে থাকলেও পানিতে তলিয়ে গিয়ে তাদের চারা গুলো নষ্ট হচ্ছে। টানা বৃষ্টিপাতে নিচু জমিগুলোতে পানি জমে থাকায় ধানের রোপণকৃত চারাগুলো বিনষ্ট হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন প্রান্তিক পর্যায়ের কৃষকগণ। রোপণকৃত চারাগুলো নষ্ট হলে নতুন করে চারা লাগতে সম্ভব হবে না কৃষকের পক্ষে । কিন্তু পানিতে তলিয়ে ফসল হারানোর কষ্টে কৃষকদের বুকে চাপা আর্তনাদ।

সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলার ভূবনকুড়া ইউনিয়নের জামগড়া গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া ভারতের মেঘালয় রাজ্য থেকে নেমে আসা ছোট নালার জন্য বাধেঁর পশ্চিম পার্শে পানি নিষ্কাশনের কোন ব্যবস্থা না থাকায় এই এলাকায় প্রায় পঞ্চাশ বিঘা জমির ফসল দীর্ঘ সময় পানিতে তলিয়ে থাকায় নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। উচু কিছু জমির ফসল ঘরে তুলতে পাওয়ার আশা থাকলেও নিচু জমিগুলোর ফসল সম্পুন্ন নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। ওই ইউনিয়নে টানা বৃষ্টিপাত ও জলাবদ্ধতার কারণে এই সমস্যায় পরছেন কৃষকরা। কৃষকদের দাবী ওই খানে বড় কোন চুঙ্গি বা পাইপ না থাকার করনে পানি নিষ্কাশনের অভাবে তাদের ফসল প্রতি বছরে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এই বাঁধে যদি বড় কোন চুঙ্গি বা পাইপ দেয় পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করা হলে ওইসব জমির ফসল রক্ষা পাবে এমনটা মনে করছেন ভুক্তভোগী কৃষকরা।

কৃষক হাফেজ মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক পাঠান জানায়, পানি নিষ্কাশনের সুষ্ঠ ব্যবস্থা চেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বরাবর একটি লিখিত আবেদন করেন । পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবেদনটি উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)কে দেখার জন্য দেয়। তিনি আবার আমাদের ভূবনকুড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এম সুরুজ মিঞাকে বিষয়টির ভার দেন। চেয়ারম্যান সেখানে একটি পাইপ(চুঙ্গি )দেন কিন্তুু তা দিয়ে পানি নিষ্কাশন হচ্ছে না। পানি নিষ্কাশনের দাবী স্থানীয় কৃষকদের।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রেজাউল করিম বলেন, তিনি বিষয়টি খতিয়ে দেখে শিঘ্রই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে জানান।