প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগে সাড়ে ৬ লক্ষাধিক আবেদন

প্রকাশিত: ৬:০৩ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৪, ২০২০

নিউজ ডেস্ক :সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগে গত তিন সপ্তাহে সাড়ে ৬ লক্ষাধিক আবেদন জমা পড়েছে। গত ২৫ অক্টোবর থেকে অনলাইন আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। আগামী ২৪ নভেম্বর পর্যন্ত তা চলবে। আবেদন শেষে যাচাই-বাছাইয়ের কাজ শেষ হলে লিখিত পরীক্ষা শুরু হবে বলে জানিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের (ডিপিই) সূত্র।

গত ১৯ অক্টোবর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। এর মাধ্যমে সাড়ে ৩২ হাজার শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে। শূন্য আসনের সংখ্যা বৃদ্ধি পেলে এ সংখ্যা আরও বাড়বে বলে জানা গেছে। তিন পার্বত্য জেলা রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানের প্রার্থীরা এতে আবেদন করতে পারবেন না।

ডিপিই থেকে জানা গেছে, ২৫ অক্টোবর সকাল সাড়ে ১০টা থেকে অনলাইনে আবেদন গ্রহণ শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত গতকাল শুক্রবার বিকেল ৪টা পর্যন্ত মোট ৬ লাখ ৮৬ হাজার আবেদন জমা হয়েছে। শেষ হবে ২৪ নভেম্বর রাত ১১টা ৫৯ মিনিটে। সহকারী শিক্ষকদের বেতন হবে জাতীয় বেতন স্কেল, ২০১৫ এর গ্রেড ১৩ অনুযায়ী ১১০০০-২৬৫৯০ টাকা।

প্রার্থীরা অনলাইন আবেদন করার সময় নানা ধরনের জটিলতার মধ্যে পড়ছেন। তার মধ্যে একাডেমিক সার্টিফিকেট গ্রহণ না করা, বিশ্ববিদ্যালয় যুক্ত না থাকায় আবেদন সম্পন্ন না হওয়া, জেন্ডার (লিঙ্গ) নির্বাচনে ভুলসহ নানা ধরনের জটিলতা দেখা দিচ্ছে। অনেকে টেলিটকের হেল্পলাইনে ফোন করে অভিযোগ দিচ্ছেন, অনেকে আবার ডিপিইতে নানা মাধ্যমে অভিযোগ পাঠাচ্ছেন।

ডিপিইর মহাপরিচালক এ এম মনছুরুল আলম জাগো নিউজকে বলেন, অনলাইনে শিক্ষক নিয়োগ আবেদন টেকনিক্যাল কারণে নানা ধরনের ভুলভ্রান্তি ধরা পড়ছে। এসব সমাধান করতে ওয়েবসাইটে কারেকশন অপশন যুক্ত করা হয়েছে। প্রার্থী সেই লিঙ্কে প্রবেশ করে তার অভিযোগ অথবা সমস্যা উল্লেখ করে পাঠালে তা সংশোধন করা হবে। আবেদন ফি জমা দেয়ার পরও এ টেকনিক্যাল সমস্যা সমাধান করা যাবে বলেও জানান তিনি।

এদিকে বিজ্ঞপ্তি অনুসারে প্রার্থীদের বয়স ২০ অক্টোবর পর্যন্ত সর্বনিম্ন ২১ বছর এবং গত ২৫ মার্চ পর্যন্ত সর্বোচ্চ ৩০ বছর হতে হবে। মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও শারীরিক প্রতিবন্ধীদের ক্ষেত্রে এ বয়সসীমা হবে ২৫ মার্চ পর্যন্ত ৩২ বছর।

শিক্ষাগত যোগ্যতার ক্ষেত্রে যেকোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দ্বিতীয় শ্রেণি বা সমমানের সিজিপিএসহ স্নাতক বা সম্মান বা সমমানের ডিগ্রি থাকতে হবে। আবেদন ফি নির্ধারণ করা হয়েছে ১১০ টাকা।

ডিপিই সূত্রে জানা গেছে, এবারের বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে সারাদেশে ২৫ হাজার ৬৩০ জন প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষক এবং ছয় হাজার ৯৪৭টি শূন্যপদে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে।

ডিপিইর সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, অনলাইনে ছয় লক্ষাধিক আবেদন জমা হয়েছে। আগামী ২৪ নভেম্বর পর্যন্ত প্রায় ১৫ লাখের বেশি আবেদন আসতে পারে। শেষের দুই সপ্তাহে বেশি আবেদন হতে পারে। আবেদন শেষে পরবর্তী তিন মাসের মধ্যে নিয়োগের লিখিত পরীক্ষা শুরুর প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।

এমএইচএম/জেএইচ/এমকেএইচ