| | সোমবার, ৮ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৪শে মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী |

বালিশ কেনার দুর্নীতিকে হার মানিয়েছে পর্দা : মোশাররফ

প্রকাশিতঃ ৯:১৭ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ০৭, ২০১৯

স্টাফ রিপোর্টার : বালিশের ঘটনাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজের পর্দা কেনার দুর্নীতি হার মানিয়েছে বলে জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে বিএনপির ৪১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ‘বহুদলীয় গণতন্ত্র ও শহীদ জিয়ার অবদান’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক সাংস্কৃতিক জোট নামের একটি সংগঠন।

তিনি বলেন, ‘এটা একটা অস্বাভাবিক সরকার। সব কিছু অস্বাভাবিকভাবে চলছে। দেখলাম রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে বালিশ ক্রয় ও উঠাতে কত টাকা লাগে। এখন ফরিদপুর মেডিকেল কলেজের পর্দা কেনার দুর্নীতি সেটাকেও হার মানিয়েছে। এক সেট পর্দা কিনতে নাকি খরচ ৩৭ লাখ টাকার ওপর। কেন? কারণ সরকারের কোথাও কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। সরকার অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে ব্যাংকের মাধ্যমে লুট করছে। ব্যাংক লুট, রিজার্ভ লুট হচ্ছে কোনো বিচার নেই।

মোশাররফ বলেন, বর্তমানে খেলাপিদের আরও সুযোগ দেয়া হচ্ছে। দুর্নীতি উপর থেকে নিচ পর্যন্ত ঠেকেছে। এটা জাতি ও দেশের জন্য অত্যন্ত অশনিসংকেত। সমাজে পচন লেগেছে। এই দুর্নীতি আমরা দেখছি দেশে গণতন্ত্র নেই বলে। যদি সরকার জনগণ দ্বারা নির্বাচিত হতো তাহলে তাদের দায়বদ্ধতা থাকতো। যেহেতু দায়বদ্ধতা নেই, সেহেতু যার যা ইচ্ছে তাই করছে।

তিনি বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি নাকি ভোটের রাজনীতি থেকে হারিয়ে যাচ্ছে।’ আমি মনে করি ২৯ ডিসেম্বর রাতে আওয়ামী লীগ সারা জীবনের জন্য ভোটের রাজনীতি থেকে বিদায় হয়েছে। জনগণের কাছে ভোট চাওয়ার মুখ আর তাদের নেই। তারা নিজেরা বিদায় হয়ে গেছেন। এটাও ইতিহাসে সত্য, যা মোছা যাবে না।

বিএনপির এ নীতিনির্ধারক বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনা ছিল গণতন্ত্র। দেশ স্বাধীনের সোয়া তিন বছরের মাথায় বাকশাল প্রতিষ্ঠা করে সেই গণতন্ত্রকে হত্যা করা হয়েছিল। এরপর শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেন। প্রেসিডেন্সিয়াল অর্ডার দিয়ে, বাংলাদেশে যারা রাজনীতি করতে চায় সে সব দলের নিবন্ধনের আহ্বান জানান তিনি। এরপর নতুন করে নিবন্ধন নিয়ে এই আওয়ামী লীগ রাজনীতি শুরু করে। এ ইতিহাস আওয়ামী লীগ মুছবে কীভাবে?

আওয়ামী লীগ যেখানে ব্যর্থ বিএনপি সেখানে সফল। এ জন্য তারা শহীদ জিয়া ও খালেদা জিয়ার নাম মুছে দিতে চায়।

আয়োজক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির বেপারীর সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আযাদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, কৃষক দলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য এম জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।

জাতীয় পার্টির কাউন্সিল ৩০ নভেম্বর

Matched Content

দৈনিক সময় সংবাদ ২৪ ডট কম সংবাদের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি,আলোকচত্রি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে র্পূব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সর্ম্পূণ বেআইনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে কোন কমেন্সের জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।


Shares