| | সোমবার, ৮ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৪শে মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী |

যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে হাত-পা বেঁধে নির্যাতন

প্রকাশিতঃ ৫:০৭ অপরাহ্ণ | জুন ২৮, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঈশ্বরগঞ্জে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে হাত পা বেঁধে নির্যাতন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে গৃহবধূর পিতা স্বামী চাঁন মিয়া (৩২) ও শ্বাশুড়ি আছিয়া বেগমকে (৬০) আসামী করে শুক্রবার ঈশ্বরগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

স্থানীয় এলাকাবাসী ও এজাহার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার দরগাপাড়া গ্রামের সুরুজ আলী ফকির তার মেয়ে তাসলিমা খাতুন (২৭) কে ছয় বছর পূর্বে বড়হিত ইউনিয়নের পস্তারী গ্রামের ইন্নছ আলীর পুত্র চাঁন মিয়ার সাথে বিবাহ দেন। বিয়ের পর হতে মেয়ের স্বামী চাঁন মিয়া ও শ্বাশুড়ি আছিয়া বেগম যৌতুকের জন্য চাপ সৃষ্টি করে আসছিল। পিতার দারিদ্রতার কারণে স্বামী শাশুড়ির দাবিকৃত যৌতুক এনে দেয়া সম্ভব হয়নি। স্বামী শ্বাশুড়ির মানুষিক নিপীড়নের মধ্য দিয়ে দীর্ঘ ছয় বছর ঘর সংসার করে আসছিল। এর মধ্যে তাসলিমার একটি ছেলে সন্তান জন্মনেয়। কিছুদিন পূর্বে ছেলেটি পানিতে ডুবে মারা যায়। ছেলে মারা যাওয়ার পর থেকে তাসলিমার উপর স্বামী শ্বাশুড়ির অত্যাচার আরো তীব্র আকার ধারণ করে।

নার্সিং ভর্তি পরীক্ষার ফল তৈরি করেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর!

গত ২৬ জুন রাতে স্বামী শ্বাশুড়ি যৌতুকের টাকা এনে দেয়ার জন্যে চাপ সৃষ্টি করে। তাসলিমা যৌতুক এনে দিতে অস্বীকার করলে রশি দিয়ে হাত পা বেঁধে রেধড়ক মারপিট করে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে সিলিং ফ্যানে ঝুলানোর চেষ্টা করে। এসময় তার আর্তচিৎকারে প্রতিবেশি লোকজন ঘরের দরজা ভেঙ্গে ঘটনাস্থল থেকে তাসলিমাকে উদ্ধার করে পার্শ্ববর্তী সেলিনার বাড়িতে নিয়ে যায়। বিষয়টি রাতেই মোবাইল ফোনে তাসলিমার বাবাকে জানানো হয়।

পরদিন তাসলিমার বাবা চাঁন মিয়ার বাড়িতে গেলে বিবাদীগণ তাকেও মারধর করে। পরে তিনি তার মেয়েকে পাশের বাড়ি থেকে ঈশ্বরগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করেন। তাসলিমার সারা শরীর ও ঘাড়ে প্রচন্ড আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাসলিমা বর্তমানে ঈশ্বরগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে ।

এ ব্যাপারে ঈশ্বরগঞ্জ থানার এস আই সজীব ঘোষ জানান, অভিযোগ পাওয়া গেছে আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

Matched Content

দৈনিক সময় সংবাদ ২৪ ডট কম সংবাদের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি,আলোকচত্রি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে র্পূব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সর্ম্পূণ বেআইনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে কোন কমেন্সের জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।


Shares