| |

চট্টগ্রামে জেএসসিতে বেড়েছে পাশের হার : পিইসিতে ৯৭.৯৮ ও ইবতেদায়ীতে ৯৫.৮৭ শতাংশ

প্রকাশিতঃ 11:32 pm | December 26, 2018

পটিয়া (চট্টগ্রাম) থেকে সেলিম চৌধুরী : ২০১৮ সালের জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) এবং প্রাথমিক শিক্ষা ও ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে গতকাল সোমবার। জেএসসিতে গত বছরের তুলনায় চট্টগ্রামে এবার বেড়েছে পাসের হার। গতবারের চাইতে ০.৩৫ শতাংশ বেড়ে এবারে চট্টগ্রাম বোর্ডে পাসের হার ছিলো ৮১.৫২ শতাংশ। ২০১৭ সালে জেএসসিতে এ বোর্ড থেকে পাসের হার ছিলো ৮১.১৭ শতাংশ।

তবে এবার চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে জেএসসিতে কমে গেছে জিপিএ-৫ প্রাপ্তি শিক্ষার্থীর সংখ্যা। জিপিএ-৫ এ গতবারের তুলনায় এবার ৫ হাজার ৮৪ জন শিক্ষার্থী কমেছে। গতবার জেএসসিতে এ বোর্ড থেকে ১০ হাজার ৩শ ১৫ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেলেও এবার চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডে জিপিএ-৫ পেয়েছে মাত্র ৫ হাজার ২শ ৩১ জন শিক্ষার্থী। জিপিএ-৫ পাওয়াদের মধ্যে ছাত্রের সংখ্যা ২ হাজার ৩০ জন এবং ছাত্রীর সংখ্যা ৩ হাজার ২শ ১ জন।

গতকাল সোমবার দুপুরে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের মিলনায়তনে বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো: মাহবুব হাসান আনুষ্ঠানিকভাবে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, এ শিক্ষাবোর্ড থেকে এ বছর ২ লাখ ২ হাজার ৪শ ৫৫ জন পরীক্ষার্থী জেএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে কৃতকার্য হয়েছে ১ লাখ ৬৫ হাজার ৩৮ জন পরীক্ষার্থী। সে হিসেবে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে জেএসসিতে এবারের পাশের হার ৮১.৫২ শতাংশ। ছাত্র পাসের হার ৮২.২৭ শতাংশ এবং ছাত্রী পাসের হার ৮০.৯২ শতাংশ।

এবার চট্টগ্রাম মহানগরের শিক্ষার্থীদের পাসের হার ৮৭.১৯ শতাংশ। মহানগর বাদে জেলায় পাসের হার ৭৮.৩৯ শতাংশ। এরমধ্যে কক্সবাজার জেলায় পাসের হার ৮৫.৮৩ শতাংশ, খাগড়াছড়ি জেলায় পাসের হার ৭৬.৭৫, বান্দরবান জেলায় পাসের হার ৮০.০৩ শতাংশ এবং রাঙামাটি জেলায় পাসের হার ৭৯.৭৪ শতাংশ।

জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের জিপিএ-৫ প্রাপ্তির দিক থেকে এ বছর শীর্ষস্থান দখল করে নিয়েছে ডা. খাস্তগীর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। তবে জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে সেরাদের তালিকার সপ্তম স্থানে অবস্থান করলেও শতভাগ পাশের হারে শীর্ষস্থান অর্জন করেছে বাংলাদেশ মহিলা সমিতি বালিকা (বাওয়া) উচ্চ বিদ্যালয়। চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডে শতভাগ পাস করা ৮৯ টি স্কুলের মধ্য থেকে শীর্ষস্থানটি দখলে রাখে এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি। এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ৩শত ৮৩ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সকলেই পাস করেছে। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১শত ৪৩ জন।

চট্টগ্রাম বোর্ডে জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে সেরা দশ : চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ২০১৮ সালের জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় অংশ নেওয়া নগরীর ঐতিহ্যবাহি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ডা. খাস্তগীর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৩শত ২১ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে সর্ব্বোচ্চ ২শ ৩৬ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে এ বছর চট্টগ্রাম বোর্ডে ২য় ও তয় স্থান দখল করে নিয়েছে চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল ও নাসিরাবাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। জেএসসি পরীক্ষায় চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল থেকে সর্বমোট ৩শত ৮ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ১শ ৯৮ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। অন্যদিকে ৪শত ৪ জন পরীক্ষার্থী নাসিরাবাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ১শত ৭২ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে।

তাছাড়া এ বোর্ডে জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে সেরা দশের তালিকায় চতুর্থ স্থানে চট্টগ্রাম সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় স্থান পেয়েছে। এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে মোট ২শত ৪২ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে ১শত ৬৪ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। পঞ্চম স্থান দখল করেছে নগরের বিশেষায়িত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নৌ-বাহিনী উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ। এ প্রতিষ্ঠান থেকে ৫শত ৫৪ জন শিক্ষার্থী জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ১শত ৬১ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। চট্টগ্রাম সরকারি সরকারি মুসলিম উচ্চ বিদ্যালয় জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে ৬ষ্ঠ স্থান অধিকার করেছে।

এ প্রতিষ্ঠান থেকে ১ শত ৫০ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। পরীক্ষায় অংশ নেন ৩শত ২১ জন শিক্ষার্থী। সপ্তম স্থানে বাংলাদেশ মহিলা সমিতি বালিকা (বাওয়া) উচ্চ বিদ্যালয়। ১শত ৪১ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়ে অস্টম স্থানে রয়েছে বাকলিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। এ প্রতিষ্ঠান থেকে ৩শত ৪৫ জন শিক্ষার্থী জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়।

এছাড়া নবম স্থানে কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় এবং ১০ম স্থান অর্জন করে চট্টগ্রাম সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। চট্টগ্রাম সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবার জেএসসি পরীক্ষায় ৩শত শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ১শত ৭ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। নবম স্থান অধিকারী কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২শত ৩১ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১শত ১২ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে।

জেএসসিতে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্রে সেরা দশ : পাসের হারে সেরা ১০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান: এ বোর্ডের ৮৯ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবার শতভাগ পাস করেছে। এর মধ্যে প্রথম স্থান দখল করে নিয়েছে বাংলাদেশ মহিলা সমিতি বালিকা (বাওয়া) উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ।
দ্বিতীয় স্থানে বাকলিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, তৃতীয় ডা. খাস্তগীর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, চতুর্থ সরকারি মুসলিম উচ্চ বিদ্যালয়, পঞ্চম স্থানে চট্টগ্রাম সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, ষষ্ঠ স্থানে সেন্ট প্লাসিডস উচ্চ বিদ্যালয়, সপ্তম স্থানে চট্টগ্রাম সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, অষ্টম স্থানে কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, নবম স্থানে সেন্ট স্কলাস্টিকা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এবং দশম স্থান অর্জন করেছে চিটাগং রেসিডেন্সিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়।

একইদিন দুপুরে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পিইসি ও ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষায় চট্টগ্রাম জেলার ফল ঘোষণা করেন অতিরিক্ত জেলা (শিক্ষা ও আইসিটি) আমিরুল কায়ছার।

ফলাফলে দেখা যায়, এ বছর পিইসিতে নগরসহ চট্টগ্রামের ২০ শিক্ষা থানার ১ লাখ ৪১ হাজার ২৬ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে ১ লাখ ৩৮ হাজার ১শ ৭৪ জন শিক্ষার্থী কৃতকার্য হয়েছে। পাসের হার ছিলো ৯৭.৯৮ শতাংশ। ১৮ হাজার ১শ ৮৪ জন শিক্ষার্থী পিইসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছে এবছর।

অন্যদিকে ২০১৮ সালের চট্টগ্রামে ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষায় ২৩ হাজার ৮শ ১৩ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ২২ হাজার ৮শ ৩০ জন শিক্ষার্থী কৃতকার্য হয়েছে। সে হিসেবে পাশের হার ছিলো ৯৫.৮৭ শতাংশ। চট্টগ্রামে ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষায় এবার ৯শ ৯৯ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে।


দৈনিক সময় সংবাদ ২৪ ডট কম সংবাদের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি,আলোকচত্রি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে র্পূব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সর্ম্পূণ বেআইনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে কোন কমেন্সের জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।


Shares
error: Content is protected !!