| |

ব্যাটিং বিপর্যয়ে দিন শেষ বাংলাদেশের

প্রকাশিতঃ 9:22 pm | November 23, 2018

স্পোর্টস ডেস্ক : টেস্টের বয়স মাত্র দু’দিন। এখনই বলে দেয়া সম্ভব, যেই জিতুক এই ম্যাচে ফল হবেই। ড্র হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। চট্টগ্রামের সাগরিকার উইকেট যে স্পিনারদের জন্য ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে, সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। প্রথম ইনিংসে ৭৮ রানের লিড নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নামার পর লজ্জায় ডোবার অবস্থা বাংলাদেশের। দ্বিতীয় দিন শেষ বিকেলে মাত্র ১৭ ওভার ব্যাটিং করে ৫৫ রান তোলার আগেই ৫ উইকেট হারিয়ে বসেছে টাইগাররা।

দুই ইনিংসে বাংলাদেশের লিড দাঁড়ালো কেবল ১৩৩ রানের। ম্যাচ জিততে হলে, এই ইনিংসে বাকি ব্যাটসম্যানদের ঘুরে দাঁড়ানোছাড়া কোনো বিকল্প নেই। সেটা কি পারবেন মুশফিক-মিরাজরা? দ্বিতীয় দিন শেষে ১১ রান নিয়ে মুশফিক এবং কোনো রান না নিয়ে উইকেটে রয়েছেন মেহেদী হাসান মিরাজ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ২৪৬ রানে অলআউট করে দেয়ার যে স্বস্তি, সেটা শেষ বিকেলে হঠাৎ উধাও হয়ে গেলো। ৫৩ রানের মাথায় পঞ্চম উইকেটের পতন। একে একে ফিরে গেলেন সেরা পারফরমাররা। ইমরুল কায়েস, সৌম্য সরকার, মুমিনুল হক, সাকিব আল হাসান এবং সর্বশেষ আউট হলেন মোহাম্মদ মিঠুন। এই ৫ জনের উইকেট হারিয়ে যদিও দিশেহারা বাংলাদেশ। তবুও আশা উইকেটে মুশফিক-মিরাজ রয়েছেন। ব্যাট করতে বাকি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, নাঈম হাসানরা।

দিনের শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হন মোহাম্মদ মিঠুন। ইনিংসের ১৫তম ওভারে দেবেন্দ্র বিশুর বলে মিঠুন বোল্ড হওয়ার পর অবশ্য খেলা হয়েছে আর দুই ওভার। আউট হওয়ার আগে ১৭ রান করেন মিঠুন।

তার আগে রিভিউর কারণে মিঠুন বাঁচলেন দু’বার; কিন্তু মুমিনুল হক রিভিউ নেয়ারই প্রয়েজন মনে করলেন না। সোজা হাঁটা শুরু করলেন। সতীর্থ মোহাম্মদ মিঠুন এসে রিভিউর কথা বললেও তাতে কর্ণপাত করেননি তিনি। হেঁটে চলে গেলেন। কারণ, মুমিনুল নিশ্চিত ছিলেন- ওটা লেগ বিফোর ছিলই। একটি রিভিউ নষ্ট করে দেয়ার কোনো মানে হয় না।

রোস্টন চেজের বলের ঘূর্ণিতে মুমিনুল ফাঁদে যেভাবে পড়লেন, ততোটা ফাঁদে পড়েননি সাকিব আল হাসান। মাঠে নেমে একটু ধৈয্য ধরার যেখানে প্রয়োজন ছিল, পরপর তিনটি উইকেপ পড়ে যাওয়ার পর যে বিপর্যয়, সেটা কাটানোর যে চেষ্টা থাকার কথা ছিল, তা মোটেও ছিল না সাকিবের মধ্যে। মুমিনুল আউট হওয়ার পরের ওভারেই উইকেট বিলিয়ে দিলেন সাকিব।

বোলার জোমেল ওয়ারিক্যান। স্পিণের ঘূর্ণিতে যে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা পুরোপুরি বিভ্রান্ত, সেটা দেখেই বোঝা যাচ্ছে। সে ক্ষেত্রে ওয়ারিক্যানকে স্লগ সুইপে উড়িয়ে মেরে খেলতে গেলেন সাকিব। কিন্তু বল বাউন্ডারির ভেতরেই থেকে গেলো। মিডউইকেটে শ্যানন গ্যাব্রিয়েলের হাতে ক্যাচটা জমা পড়তে কোনোই বেগ পেতে হয়নি। ১ রান করে আউট হয়ে গেলেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক। তার আগে ১২ রান করে আউট হন মুমিনুল হক।

ঘরোয়া ক্রিকেটে রানের ফুলঝুরি। একের পর এক সেঞ্চুরি-হাফ সেঞ্চুরি। চারদিক থেকে দাবি উঠতে শুরু করে সৌম্য সরকারকে দলে নেয়ার জন্য। জাতীয় দলের নির্বাচকরাও আর বিলম্ব করলেন না, ফিরিয়ে আনলেন সৌম্য সরকারকে। শুধু ফিরে আসাই নয়, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টের দলে সুযোগ মিলে যায় তার।

কিন্তু জাতীয় দলে ফিরেই আবার সেই চেনা পথে সৌম্য সরকারের ফর্ম। প্রথম ইনিংসে কোনো রান করতে পারেননি। আউট হয়েছিলেন প্রথম ওভারেই। দ্বিতীয় ইনিংসে সৌম্য সরকার রানের খাতা খুলতে পেরেছিলেন। তবে, খুব বেশি দুর যাওয়া হলো না তার। মাত্র ১১ রান করতে পারলেন। এরপরই উইকেটটা বিলিয়ে দিয়ে এলেন তিনি।

ইনিংসের তৃতীয় ওভারের চতুর্থ বলেই রোস্টন চেজকে জায়গায় দাঁড়িয়ে অহেতুক ড্রাইভ করতে গেলেন সৌম্য। বল ঠিক মত ব্যাটে লাগলো না। ব্যাটের কানায় লেগে চলে গেলো প্রথম স্লিপে দাঁড়ানো ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েটের হাতে। আরও একবার ব্যর্থতার গ্লানি মাথায় নিয়ে সাজঘরে ফিরে গেলেন সৌম্য সরকার।

তার আগেই অবশ্য উইকেটের পতন ঘটিয়ে ফেলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দ্বিতীয় ইনিংসের শুরু করতে না করতেই উইকেটটা হারিয়ে সাজঘরে ফিরে যান ইমরুল কায়েসও। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডেতে দারুণ ব্যাটিং করা ইমরুল ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এসে হয়ে গেলেন বেশ নড়বড়ে।

প্রথম ইনিংসেই দেখা গিয়েছিল তার আত্মবিশ্বাসহীন ব্যাটিং। ৪৪ রান করলেও কয়েকবার বেঁচে গিয়েছিলেন তিনি। পা ছিল টলটলায়মান। সেই অবস্থা দ্বিতীয় ইনিংসেও। এবার আর জীবন পাননি। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই উইকেট হারিয়ে বসেন তিনি।

ক্যারিবীয় স্পিনার জোমেল ওয়ারিক্যানের বলে সরাসরি বোল্ড হয়ে গেলেন তিনি। অফ সাইডে পড়ে বল সোজা ঢুকে পড়ে ইমরুলের ব্যাট এবং প্যাডের ফাঁকে। সেখানেও বাধার সৃষ্টি করতে পারেননি বাংলাদেশের এই ওপেনার। বল গিয়ে সোজা আঘাত হানে স্ট্যাম্পে। বোল্ড হয়ে যান ইমরুল। রান করেন তিনি তখন মাত্র ২টি। দলীয় রান ছিল তখন ১৩।


দৈনিক সময় সংবাদ ২৪ ডট কম সংবাদের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি,আলোকচত্রি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে র্পূব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সর্ম্পূণ বেআইনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে কোন কমেন্সের জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।


Shares
error: Content is protected !!