| |

তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রী ধর্ষণ ও হত্যাকারীদের দ্রুত বিচারের দাবীতে ফুলবাড়ীগেটে মানববন্ধন

বাংলাদেশের জনপ্রিয় ও সর্বশেষ খবর পেতে আ্যপসটি ইনস্টল করুন

প্রকাশিতঃ 9:19 pm | November 09, 2018

আতিয়ার রহমান,খুলনা অফিস : খুলনা কুয়েটে সামনে ক্যাম্পাসস্থ উন্মেষ সরকারি প্রথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির মেধাবী ছাত্রী যোগিপোল ৭ নং ওয়ার্ডের জব্বারের বাড়ীর ভাড়াটিয়া ট্রাক ড্রাইভার হালিম হাওলাদারের কন্যা সাদিয়া আক্তার শিমু (৮) ধর্ষণ ও হত্যাকারীদের দ্রুত বিচারের দাবীতে শুক্রবার (৯ নভেম্বর) জুম্মাবাদ খানজাহান আলী থানা ইসলামী আন্দোলন ও এলাকাবাসীর উদ্যোগে খুলনা যশোর মহাসড়কের ফুলবাড়ীগেটের বাসস্টান্ডে মানববন্ধন কর্মসুচি পালন করেন।

দুপুর ২টা ৩০ মিনিট থেকে বেলা সাড়ে ৩টা ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধনে নেতৃবৃন্দ ধর্ষণ ও নির্মম এই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত নরপশুদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে চার্জশীট প্রদান করে দ্রুত বিচারের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান। মানববন্ধন থেকে বক্তারা আরো বলেন খুনিদের বাচাতে বিভিন্ন প্রকার ষড়যন্ত্র চলছে যার কারনে পুলিশ চাঞ্চল্যকর এই মামলার চার্জশীট দিতে বিলম্ব করছে । মানববন্ধনে ইসলামী আন্দোলন খানজাহান আলী থানা শাখার সভাপতি মাওঃ সিরাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে এবং সেক্রেটারী মোঃ কামরুল ইসলামের পরিচালনায় বক্তৃতা করেন, মোঃ আজাদ মোল্যা, মোঃ জাহিদ হোসেন, মুফতি হাফিজুর রহমান ফারুকি, মোঃ ফজলুল্লাহ আল মাছুম রিফাত, খানজাহান আলী থানা খেলাফত মসলিসের সভাপতি মুফতি আঃ জব্বার, খানজাহান আলী থানা জাপা আহবায়ক শেখ আনিছুর রহমান, কাজী আব্দুল মাজেদ. মোঃ মোস্তফা হোসেন, মোঃ আল আমিন, মোঃ রফিকুল ইসলাম টিটুল, মোঃ স্কেন্দার আলী, মোঃ শরিফুল ইসলাম, মোঃ নজরুল হুদা চৌধরী, মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুন, হাফেজ মোঃ আবুল হাসেম, মোঃ নুরে আলম জুয়েল, মোঃ গোলাম আলী, মোঃ রুস্তম আলী, মোঃ হারুন অর রশিদ, মোঃ দেলোয়ার হোসেন, মোঃ বজলুর রহমান, আব্দুল বারেক, রেজাউল হোসেন, মহিদুল ইসলাম, আব্দুল আজিজ বিশ^াস প্রমুখ নেতৃবৃন্দ। মানববন্ধনে ইসলামী আন্দোলন, ফুলবাড়ীগেট জামিয়া কারিমিয়া মাদ্রাসার সকল ছাত্র-শিক্ষক মন্ডলী এবং এলাকার বিভিন্ন স্থরের সাধারণ মানুষ অংশগ্রহন করেন।

উল্লেখ্য সাদিয়া আক্তার শিমু(৮) দৌলতপুর থানাধীন রেলিগেট সাহেবপাড়া এলাকায় সাদিয়ার মামার বন্ধু সাদ্দামের বাসায় বেড়াতে গিয়ে ২ অক্টোবর সাদ্দামের শালক হাবিবুর রহমান তাকে ধর্ষণ করে নির্মম ভাবে হত্যা করে। পরে প্রভাবশালী একটি মহলের যোগসাজসে শিমুর মৃত্যুকে পানিতে ডুবে অপমৃত্যু বলে চালিয়ে দিয়ে থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়। এক পর্যায়ে সাদিয়া আক্তার শিমুর মৃত্যুর প্রকৃত রহস্য বেরিয়ে আসলে তার নানা তোতা মিয়া বাদী হয়ে দৌলতপুর থানায় ধর্ষণ করে হত্যার অভিযোগ এনে সাদ্দামের শালা মোঃ হাবিবুর রহমান(২০) এবং মহেশ^ারপাশা সাহেবপাড়ার সাদ্দামের স্ত্রী শারমিনকে আসামী করে মামলা দায়ের করে মামলা নং ১০, তাং ৬/১০/১৮।


দৈনিক সময় সংবাদ ২৪ ডট কম সংবাদের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি,আলোকচত্রি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে র্পূব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সর্ম্পূণ বেআইনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে কোন কমেন্সের জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।


Shares
error: Content is protected !!