| |

হালুয়াঘাটে অতিরিক্ত লোড শেডিংয়ে ক্ষোভে ফুসছে গ্রাহক

প্রকাশিতঃ 9:01 pm | June 13, 2018

শুভাশীষ সরকার শুভ : দেশে বিদ্যুতের ঘাটতি ও লোডশেডিং নেই। সরকার সংশ্লিষ্টরা এমনটি দাবি করলেও বিদ্যুতের অব্যাহত ভেলকিবাজী চলছে ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট উপজেলায়। এই উপজেলায় ঘন ঘন লোড শেডিং এখন নিত্যনৈমত্তিক সমস্যায় পরিণত হয়েছে।

বিশেষ করে এই রমজানের ইফতার, তারাবীহ, ও সেহরীর সময় লোড শেডিং ছাড়িয়েছে সহনীয়তার মাত্রা। এ ছাড়াও লোডশেডিংয়ের কারনে বৈদুৎতিক সামগ্রী ও ফ্রিজে রাখা খাবার দাবার সহ ব্যবসা বাণিজ্যে মন্দা ভাব দেখা দিয়েছে। যার ফলে এ নিয়ে গ্রাহকদের মাঝে চরম ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে। ফেইসবুক ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও এর রেশ যথেষ্ট উদ্বেগজনক। পবিত্র রমজান মাসে যেখানে এই উপজেলায় গ্রাহকেরা নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের দাবি জানিয়ে আসছিলেন বিশেষ করে ইফতার, তারাবীহ ও সেহরীর সময়ে সেখানে গুরুত্বপূর্ণ এই তিন সময় সহ দিনরাত অব্যাহত লোড শেডিংয়ের অসহনীয় যন্ত্রণা বিক্ষুব্ধ করে তুলেছে তাদেরকে।

জানা গেছে বর্তমান সরকারের তিনগুন বিদ্যুৎ বৃদ্ধির সুফল পাচ্ছেনা হালুয়াঘাট উপজেলার ১২ হাজার গ্রাহক। দিনে গড়ে ৩-৪ ঘন্টা লোড শেডিং এখন নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে। প্রচন্ড তাপদাহের সহ বিদ্যুতের ভেলকিবাজী চরম ভোগান্তিতে ফেলেছে গ্রাহকদের। বিদ্যুৎ এই আছে এই নেই খেলায় পুরোদমে অতিষ্ট তারা। অনেকেরই তারা সরকারের দাবি অনুযায়ী পর্যাপ্ত বিদ্যুৎ সরবরাহের মধ্যে হালুয়াঘাটে কেন হচ্ছে মাত্রাতিরিক্ত লোডশেডিং।

আবাসিক প্রকৌশলী বিল্লাল হোসেন বলেন, শেরপুরের গাজিরখামার পাওয়ার স্টেশনে যান্ত্রিক গুলযোগের জন্য বিদ্যুৎ সরবরাহ কম আগামী ২৩ জুনের মধ্যে বিদ্যুৎ স্বাভাবিক পর্যায়ে চলে আসবে বলে আশা করছেন।


দৈনিক সময় সংবাদ ২৪ ডট কম সংবাদের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি,আলোকচত্রি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে র্পূব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সর্ম্পূণ বেআইনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে কোন কমেন্সের জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।