| |

সিলেটে গনধর্ষণ মামলার প্রধান চার আসামীসহ ৬ জনকে আটক করেছেন র‌্যাব-১৪

প্রকাশিতঃ 5:28 pm | April 19, 2018

স্টাফ রিপোর্টার : সিলেটে র‌্যাব-১৪ কর্তৃক গনধর্ষণ মামলার প্রধান চার আসামীসহ ৬ জনকে আটক করেছেন র‌্যাব-১৪।

ময়মনসিংহ র‌্যাব-১৪ কর্তৃক প্রেরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানান, গত ১২ এপ্রিল ২০১৮ ইং তারিখ কিশোরগঞ্জ জেলার অস্টগ্রাম থানাধীন বরাগিরকান্দি (আদমপুর) এলাকায় জনৈক কিশোরী তার নিজ বাড়ীতে একাকী অবস্থানকালে তাকে শারীরিক নির্যাতনের উদ্দেশ্যে একই গ্রামের ০৬ জন দুস্কৃতকারি তার মুখে ওড়না পেচিয়ে অপহরন করে বাড়ীর দক্ষিন দিকে অনুমান আধা কিলোমিটার দূরে পতিত জমিতে নিয়ে জোরপুর্বক শারিরীক নির্যাতন ও ধর্ষন করে।

এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। জঘন্য এই পাশবিক নির্যাতনের ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথেই র‌্যাব-১৪ ধর্ষনের সাথে জড়িত অপরাধীদের ধরার জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা অব্যাহত রাখে। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯ এপ্রিল ২০১৮ ইং ১০.৩০ ঘটিকার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব -১৪, ভৈরব ক্যাম্প এর কোম্পানী কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ মাহফুজুর রহমান এবং স্কোয়াড কমান্ডার এডি চন্দন দেবনাথ এর নেতৃত্বে একটি চৌকস আভিযানিক দল সিলেট জেলার কোম্পানীগঞ্জ থানাধীন কালীবাড়ী এলাকার দয়ারবাজার নামক সীমান্তবর্তী প্রত্যান্ত এলাকা হতে উক্ত ঘটনার সাথে জড়িত এজাহারনামীয় আসামী  হযরত আলী (২০), পিতা-সামছু মিয়া,  আসাদ মিয়া(২০), পিতা-মৃত উছমান মিয়া, সুশেন মিয়া(১৯), পিতা- আজিজ মিয়া, এমদাদুল মিয়া(১৭), পিতা- শাহাবুদ্দিন, মাসুম মিয়া(২৩), পিতা-সুজি মিয়া , জাহের মিয়া(২৭), পিতা-মৃত আসমত আলী মিয়া সর্বসাং- বরাগির কান্দি(আদমপুর), থানা- অষ্টগ্রাম, জেলা- কিশোরগঞ্জদের গ্রেফতার করেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামীগন ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।

ঘটনা সংক্রান্তে জানা যায় নির্যাতিত কিশোরী তার বড় ভাইয়ের সাথে চট্রগ্রামে বসবাস করত। ঘটনার এক মাস পুর্বে সে তার নিজ বাড়ীতে আসে এবং ঘটনার ৫/৬ দিন পূর্বে একই গ্রামের হযরত আলী কিশোরীকে প্রেমের প্রস্তাব দেয়। কিশোরী প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হলে ঘটনার তারিখ ও সময়ে তাকে একা পেয়ে ক্ষোভের বশবর্তী হয়ে হযরত আলী ও তার অপরাপর সহযোগীরা জোরপূর্বক বাড়ী থেকে তুলে নিয়ে পালাক্রমে পাশবিক নির্যাতন করে এবং নির্যাতন শেষে ভিকটিমের বাড়ীর পিছনে ফেলে রেখে চলে যায়।

ঘটনার সংবাদ শুনে কিশোরীর বাবা তাকে মুমূর্ষ অবস্থায় উদ্ধার পূর্বক গত ১৩ এপ্রিল ২০১৮ ইং তারিখ অস্ট্রগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। পরবর্তীতে তার শারিরীক অবস্থার অবনতি ঘটলে চিকিৎসকের পরামর্শে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কিশোরগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন এবং গত ১৮ এপ্রিল ২০১৮ ইং তারিখ তার শারিরীক অবস্থার উন্নতি হলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে ছাড়পত্র প্রদান করেন।

এ ঘটনার প্রেক্ষিতে কিশোরীর মা বাদী হয়ে গত ১৫ এপ্রিল ২০১৮ ইং তারিখ এ অষ্টগ্রাম থানার মামলা নং-৮, তারিখ-১৫/০৪/২০১৮ ইং ধারা- নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৭/৯(৩) দায়ের করেন।ঘটনার সঙ্গে জড়িত গ্রেফতারকৃত আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে থানায় হস্তান্তর এর কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।


দৈনিক সময় সংবাদ ২৪ ডট কম সংবাদের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি,আলোকচত্রি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে র্পূব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সর্ম্পূণ বেআইনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে কোন কমেন্সের জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।