স্টাফ রিপোর্টার : আগামী ১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে এখন থেকেই প্রস্তুতি শুরু করেছে দেশের বৃহৎ রাজনৈতিক দলগুলো।

বিশেষ করে ক্ষমতাসীন জোটের প্রধান দল আওয়ামী লীগ ও সংসদের বাইরের বিরোধী দল বিএনপি আগামী সংসদ নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জিং মনে করে মাঠে নেমেছে যোগ্য প্রার্থীর সন্ধানে।

কেবল যোগ্যপ্রার্থী নির্বাচনই নয়, তাদের নির্বাচনী বৈতরণী পার করার ওপর নির্ভর করছে আওয়ামী লীগ বা বিএনপি’র ক্ষমতার পালাবদলের গতিপ্রকৃতি।

আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকার সুবাদে এনএসআই-জিডিএফআইসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা দিয়ে খোঁজখবর নিচ্ছে। পাশাপাশি দলীয় বিশস্ত নেতাকর্মী দিয়েও জরিপ করছে আওয়ামী লীগ। পক্ষান্তরে বিএনপিও তাদের জরিপ দলের মাধ্যমে খোঁজ নিচ্ছে কে এলাকায় জনপ্রিয়। অতীত ও বর্তমানে বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামে যারা রাজপথে ছিল এবং দলের প্রতি যারা অনুগত, তাদের বিষয়গুলো প্রাধান্য দিচ্ছে বিএনপি। ব্যক্তি ইমেজ, স্বচ্ছতা, রাজনৈতিক ক্যারিয়ার, এলাকায় জনপ্রিয়তা, মাঠে কর্মকান্ড, জনসম্পৃক্ততা নানা দিক বিবেচনায় রাখছে ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ।

দেশের বিভিন্ন স্থানের মতো ময়মনসিংহেও চলছে নির্বাচনী প্রস্তুতিমূলক নানা কর্মকান্ড। কেন্দ্রের পাশাপাশি মাঠের নেতারাও সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকায় নিজেদের সম্পৃক্ত রেখে মনোনয়ন দৌড় প্রতিযোগিতায় প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

ময়মনসিংহের ১১টি সংসদীয় আসনে খোঁজ খবর নিয়ে এসব আসনে আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থীদের   নামের তালিকা। বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা, দলের হাই কমান্ড ও স্থানীয় পর্যায়ে অনুসন্ধান চালিয়ে বের করা হয়েছে এ তালিকা। তথ্যানুযায়ী ময়মনসিংহে ১১টি আসনে শাসক দল আওয়ামী লীগের মোট ৬৬ জন সম্ভাব্য প্রার্থী দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশায় মাঠে রয়েছেন।

১১তম সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এসব প্রার্থীরা এরই মাঝে এলাকায় প্রচার প্রচারণা শুরু করে দিয়েছেন। স্ব স্ব এলাকায় নানা উপলক্ষে পোষ্টার ব্যানার ফ্যাষ্টুন দেয়াসহ নানা কর্মকান্ড চালাচ্ছেন এসকল প্রার্থীরা। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে প্রার্থীরা তুলে ধরছেন বর্তমান সরকারের বিভিন্ন সাফল্যের চিত্র।

ময়মনসিংহ-০১ (হালুয়াঘাট-ধোবাউড়া): সীমান্তবর্তী হালুয়াঘাট ও ধোবাউড়া এ দুই উপজেলা নিয়ে ময়মনসিংহ-০১ আসন। এ আসনে বর্তমান এমপি উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য জুয়েল আরেং, হালুয়াঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ খান, হালুয়াঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা কবিরুল ইসলাম বেগ, ধোবাউড়া উপজেলা চেয়ারম্যান মজনু মৃধা, ধোবাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট আব্দুল মান্নান আকন্দ, ধোবাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এডভোকেট পীযুষ কান্তি সরকার।

ময়মনসিংহ-০২ (ফুলপুর-তারাকান্দা): ফুলপুর ও তারাকান্দা এ দুই উপজেলা নিয়ে ময়মনসিংহ-০২ আসন গঠিত। এ আসনে বর্তমান এমপি ফুলপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ আসনে পাঁচ বারের এমপি ভাষা সৈনিক মরহুম শামসুল হকের ছেলে শরিফ আহমেদ, তারাকান্দা আওয়ামী লীগ নেতা এডভোকেট ফজলুল হক, সাবেক ছাত্রনেতা ফুলপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক শাহ কুতুব চৌধুরী এবং সেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আইন বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিষ্টার আবুল কালাম আজাদ মাঠে তৎপর রয়েছেন।

ময়মনসিংহ-০৩ (গৌরীপুর): গৌরীপুর উপজেলা নিয়ে ময়মনসিংহ-০৩ আসন। এ আসনে বর্তমান এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন আহমেদ, শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিপি বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ পরিষদ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সমাজ কল্যান সম্পাদক ড. সামিউল আলম লিটন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শরীফ হাসান অনু, বাকসু’র সাবেক ভিপি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুর রফিক, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাধারন সম্পাদক নাজনীন আলম, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ডা: মতিউর রহমান, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলী আহাম্মদ খান সেলভী, পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম, জেলা কৃষক লীগের সাধারন সম্পাদক গোলাম মোস্তফা (ভিপি বাবুল), ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক নেতা মোর্শেদুজ্জামান সেলিম, কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা আবু কাউসার চৌধুরী রন্টি।

ময়মনসিংহ-০৪ (সদর): সদর উপজেলা ও পৌর এলাকা নিয়ে জেলার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন ময়মনসিংহ-০৪ আসন। এখানে ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক এডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল, এফবিসিসিআই এর পরিচালক বিশিষ্ট শিল্পপতি আমিনুল হক শামীম, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক ডা: এমএ আজিজ প্রার্থী হিসাবে আতœপ্রকাশ করেছেন।

ময়মনসিংহ-০৫ (মুক্তাগাছা): মুক্তাগাছা উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসনে সাবেক এমপি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কেএম খালিদ বাবু, বাংলাদেশের প্রথম এটর্নী জেনারেল ফকির শাহাব উদ্দিনের মেয়ে মিডিয়া ব্যাক্তিত্ব তাহমিনা জাকারিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক সাবেক যুবলীগ নেতা বিল্লাহ হোসেন সরকার, সাবেক আইনমন্ত্রী আবদুল মতিন খসরু’র স্ত্রী সেলিমা সোবহান খসরু, সাবেক পৌর মেয়র আব্দুল হাই আকন্দ, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট বদর উদ্দিন আহমেদ, সাবেক এমপি এডভোকেট শামসুল হকের ছেলে উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক শাতিল মাহমুদ তারেক, এবং কৃষিবিদ নজরুল ইসলাম।

ময়মনসিংহ-০৬ (ফুলবাড়ীয়া): ফুলবাড়ীয়া উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসনে বর্তমান এমপি পাঁচবার নির্বাচিত এমপি সাবেক গণপরিষদ সদস্য সংবিধান প্রণেতা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট মোসলেম উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আব্দুল মালেক সরকার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যাপক আব্দুর রাজ্জাক, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জেলা যুবলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক এমএ কুদ্দুস, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা এডভোকেট মফিজ উদ্দিন এবং জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক শেখ গোলাম মোস্তফা তপন।

ময়মনসিংহ-০৭ (ত্রিশাল): ত্রিশাল উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসনে সাবেক এমপি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় জাতীয় পরিষদের সদস্য হাফেজ মাওলানা রুহুল আমিন মাদানী, সাবেক এমপি আব্দুল মতিন সরকার, সাবেক এমপি রেজা আলী, পৌর মেয়র সাবেক যুবলীগ নেতা এবিএম আনিসুজ্জামান আনিস, সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন-আহবায়ক এএনএম শোভা মিয়া আকন্দ।

ময়মনসিংহ-০৮ (ঈশ্বরগঞ্জ): ঈশ্বরগজ্ঞ উপজেলা নিয়ে গঠিত ময়মনসিংহ-০৮ আসনে সাবেক এমপি কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের শিল্প বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সাত্তার এবং তার ভাতিজা ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান মাহমুদ হাসান সুমন মনোনয়ন লড়াইয়ে অবতীর্ন হয়েছেন। এছাড়াও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট সৌমেন্দ্র কিশোর চৌধুরী এবং সাবেক ছাত্রনেতা তরিকুল ইসলাম তারেক প্রার্থী হিসাবে আতœপ্রকাশ করেছেন।

ময়মনসিংহ-০৯ (নান্দাইল): নান্দাইল উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসনে বর্তমান এমপি জেলা কৃষক লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক আনোয়ারুল আবেদীন খান তুহিন, সাবেক এমপি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মেজর জেনারেল (অব:) আব্দুস সালাম, বিশিষ্ট শিল্পপতি এডিএম সালাউদ্দিন হুমায়ুন, সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা শাহজাহান কবীর সুমন, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা মোস্তাফিজুর রহমান।

ময়মনসিংহ-১০ (গফরগাঁও): গফরগাও উপজেলা ও পাগলা থানা নিয়ে এ আসনে উল্লেখ যোগ্য সংখ্যক প্রার্থী রয়েছে। এ আসনে বর্তমান এমপি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল, ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট জহিরুল হক খোকা, সাধারন সম্পাদক এডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ন-আহবায়ক বিশিষ্ট শিল্পপতি ওবায়দুল্লাহ আনোয়ার বুলবুল, আনন্দমোহন কলেজের সাবেক ভিপি জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এর ব্যাক্তিগত সহকারি একেএম সাজ্জাত হোসেন শাহীন, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা বিশিষ্ট শিল্পপতি শিক্ষানুরাগী ব্যাক্তিত্ব ড. আবুল হোসেন দীপু।

ময়মনসিংহ-১১ (ভালুকা): শিল্পাঞ্চাল ভালুকা উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসনে বর্তমান এমপি ডা: আমান উল্লাহ, মুক্তিযুদ্ধের কিংবদন্তী আফসার বাহিনীর প্রধান মেজর আফসারের ছেলে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান সাবেক ছাত্রনেতা কাজিম উদ্দিন আহাম্মেদ ধনু, বিশিষ্ট শিল্পপতি মো: আব্দুল ওয়াহেদ, ইঞ্জিনিয়ার মহিউদ্দিন আহমেদ, উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা, সাবেক এমপি ভাষা সৈনিক মুক্তিযোদ্ধা মোস্তফা এম এ মতিনের কন্যা উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মনিরা সুলতানা মনি, আওয়ামী লীগ নেতা হাজি রফিকুল ইসলাম।