| |

ধোবাউড়ায় গনধোলাইয়ের শিকার ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার খান

বাংলাদেশের জনপ্রিয় ও সর্বশেষ খবর পেতে আ্যপসটি ইনস্টল করুন

প্রকাশিতঃ 1:33 pm | June 04, 2017

স্টাফ রিপোর্টার:ময়মনসিংহের ধোবাউড়ায় গরুর পাইকারদের সাথে পূর্ব-বিরোধের জের ধরে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে গনধোলাইয়ের শিকার হয়েছেন গামারীতলা ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার খান।

শনিবার বিকেলে ধোবাউড়ার ২ নং গামারীতলা ইউনিয়নের কলসিন্দুর বাজারের গরু মহালে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, পূর্ব-বিরোধের জের ধরে ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে কামালপুর গ্রামের মিরাজ আলীর পুত্র গরুর পাইকার আব্দুর রহমানের কথা কাটাকাটি হয় এবং এক পর্যায়ে উত্তেজিত হয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার খান পাইকার আব্দুর রহমানকে কিলঘুষি ও লাথি মারে।

এ ঘটনায় পাইকাররা আনোয়ার খানকে টেনে হিছড়ে পাল্টা কিলঘুষি দিয়ে গায়ের পাঞ্জাবি ছিড়ে ফেলে। ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার খান ধোবাউড়া থানা পুলিশ দিয়ে আব্দুর রহমানকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

আব্দুর রহমানের চাচাত ভাই ও গামারীতলা ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক মিরাস উদ্দিন জানান, ইউপি নির্বাচনের পূর্ব বিরোধের জের ধরে বাজারে গরু বিক্রিকে কেন্দ্র করে প্রথমে আনোয়ার খানের আতœীয় হোসেন নামক ব্যক্তির সাথে আব্দুর রহমানের কথা কাটাকাটি হয়। উভয়ের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনাও ঘটে। পরে ধোবাউড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও তার বড় ভাই আব্দুল মান্নান বিষয়টি সমাধানের জন্য গামারীতলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যানের বড় ভাই আজিজ খান এর নিকট যায়। ইফতারের পর বিষয়টির সমাধানের চেষ্টা করা হবে বলে আশ্বাস দেন। সমাধানের পূর্বেই ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার খান খবর পেয়ে নিকট আতœীয় হোসেন আলীর পক্ষ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও মারধর করে আব্দুর রহমানকে এ সময় রহমানসহ অনেকেই ্ইউপি চেয়ারম্যানকে গণধোলাই দিয়েছে। পরে চেয়ারম্যানের লোকজন এসে রহমানকে আটক করে। থানা পুলিশকে খবর দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেন এবং আব্দুর রহমানের বিরোদ্ধে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন চেয়ারম্যান । এখনো থানা হেফাজতে আটক রয়েছে আব্দুর রহমান।

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার খান বলেন, গণধোলাইয়ের কোন ঘটনা ঘটেনি এবং তিনি কাওকে পুলিশ দিয়ে আটক করেননি।

এ বিষয়ে ধোবাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শওকত আলম পিপিএম বলেন, ছোটখাট একটি ঘটনা ঘটে ছিল, চেয়ারম্যান এক জনকে আটক করে রেখেছে বিষয়টি অবগত করার পর পুলিশ পাঠিয়ে থানায় নিয়ে আসেন । এ ঘটনায় কোন মামলা মোকদ্দমা হয়নি। গত রাতেই আটককৃত আব্দুর রহমানকে ছেড়ে দিয়েছেন।

রবিবার সকাল ১১.৩০ মিনিট এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত রহমান থানা হেফাজতে আটক ছিল আটককৃত ব্যক্তির আতœীয়-স্বজনরা এ প্রতিবেদককে রহমানকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ মিথ্যা জানিয়ে ছিল বলে জানায়।


দৈনিক সময় সংবাদ ২৪ ডট কম সংবাদের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি,আলোকচত্রি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে র্পূব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সর্ম্পূণ বেআইনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে কোন কমেন্সের জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।


Shares
error: Content is protected !!