| |

কোটচাঁদপুরে এক মাসে ১ টি হত্যা দু’ডজনের বেশি চুরি

প্রকাশিতঃ 5:30 pm | January 28, 2018

কোটচাঁদপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি ঃ গত ১ মাসের ব্যবধানে কোটচাঁদপুর পৌর এলাকায় একটি হত্যা দু’ডজনের মত চুরি, ডাকাতি সংঘটিত হলেও পুলিশ নির্বিকার। বর্তমানে পৌর এলাকায় ক্রমাগত ভাবে চুরি, ডাকাতি প্রবনতা বেড়েই চলেছে।

পুলিশের নিষ্ক্রিয়তায় সাধারণ মানুষ নিজেদের জানমাল রক্ষায় রাত জেগে পাড়ায় পাড়ায় পাহারা দিচ্ছে। শহরবাসির নিরাপত্তা ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য একজন ইন্সপেক্টর, একজন এস,আই, ও একজন এ,এস,আই সহ প্রায় ২০ জন পুলিশের জনবল নিয়ে রয়েছে একটি টাউন পুলিশ ফাঁড়ি। তারা নামমাত্র টহলের নামে ঘোরাফেরা করেই ফিরছে ফাঁড়িতে।

শহর বাসির অভিযোগ পুলিশ রাতে শহরের বিশেষ বিশেষ মুল সড়কে টহল দিলেও জনবসতিপূর্ণ ওলিগলি এলাকায় টহল দিচ্ছে না তারা। এতে করে শহরের চুরি, ডাকাতি সহ নানা রকম নাশকতা মূলক কর্মকান্ড দিন দিন বেড়েই চলেছে। কেও কেও বিষয়টি নিয়ে ফাঁড়ি পুলিশের সাথে কথা বললেও তাদের জনবল সংকট ও নিজস্ব পরিবহন না থাকার অজুহাত দেখান। অথচ এই পুলিশই দিনের বেলায় ২/৩ টিমে বিভক্ত হয়ে মটর সাইকেলের কাগজপত্র দেখার নামে চুটিয়ে অর্থ বাণিজ্য করছেন। তুলছেন মাইক্রো, আলমসাধু, নছিমন, করিমন, ভাড়ায় চালিত মোটর সাইকেল, ট্রাক, ঢব সহ সকল প্রকার ইঞ্জিনচালিত পরিবহন থেকে মাসিক টাকা। গত ১ মাসে পৌর এলাকায় দু’ডজনেরও বেশি চুরি, ডাকাতির ঘটনা ঘটলেও এতে নেই কোন তাদের নজরদারি।

গত ১৬ জানুয়ারি একই রাতে বসতবাড়ি সহ ৪ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে চুরি ঘটনা ঘটে। চোরেরা বেনে পাড়ার মফিজ উদ্দিনের বাড়ির ভাড়াটিয়া নুর ইসলামের ঘরের গ্রীল কেটে নগদ ৯৪ হাজার টাকা মোবাইল সহ জিনিসপত্র নিয়ে যায়। ঐ রাতেই চোরেরা আখ সেন্টার পাড়ার সনি আবাসিকের নিচে ও পার্শ্ববর্তী ৩টি দোকানের সার্টার ও তালা ভেঙ্গে নগদ অর্থসহ জিনিস পত্র নিয়ে গেছে। এর আগে বাজার পাড়ার সাবেক পৌর মেয়র সালাহ উদ্দিন বুলবুল সিডল, ফারুক হোসেনের বাড়িতে ডাকাতি হয়।

বিহারী পাড়ার কলেজ শিক্ষক আনিচুর রহমান মান্নু, অবসর প্রাপ্ত শিক্ষক তাজুল ইসলাম, ব্যাংক কর্মচারী জিল্লুর রহমান, এনজিও কর্মী বাবলু, গার্লস স্কুল পাড়ার ব্যবসায়ী মিলন, বাজার পাড়ার মুক্তিযোদ্ধা আনিচুর রহমানের বাড়িতে চুরি সংঘটিত হয়েছে। চুরি হওয়া অধিকাংশ বাড়িতে চোরেরা গ্রীল কেটে চুরি করে।

এক্ষেত্রে কোন কোন পরিবারের লোকজন টের পেলে অস্ত্রের মুখে তাদেরকে জিম্মি করে সর্বস্ব লুট করে। স্থানীয়রা জানান, এসব চুরি ও ডাকাতির ঘটনায় শতভরি স্বর্ণালঙ্কারসহ প্রায় ৩০ লক্ষাধিক টাকা নিয়ে গেছে। গত ৪ জানুয়ারী থানা থেকে মাত্র ৫/৬’শত গজ দূরে কালীগঞ্জ জীবননগর সড়কে র কাশিপুর নামক স্থানে ভোর ৬টার দিকে ডাকাতরা রাস্তার পাশের গাছ কেটে ডাকাতি করছিল। এ সময় পার্শ্ববর্তী রাঙ্গিয়ারপোতা গ্রামের ব্যবসায়ী রবিউল ইসলাম (৫২) বাইসাইকেল যোগে বাজারে আসছিলেন। ডাকাতি স্থলে পৌছানো মাত্রই ডাকাতরা তাকে কুপিয়ে হত্যা করে।

এই ঘটনায় থানায় মামলা হলেও পুলিশ এখনও প্রকৃত হত্যাকারীদের গ্রেফতার করতে পারিনি। সব মিলিয়ে বর্তমানে পৌরবাসি চোর, ডাকাত আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। পুলিশের তৎপরতা না থাকায় বর্তমানে বাজার পাড়ায় বসবাসরত সাধারণ মানুষ প্রায় ১মাস ধরে রাত জেগে পাহারা দিচ্ছেন। অন্য দিকে বিহারী পাড়াসহ অন্যান্য পাড়াগুলোতেও ঘরে ঘরে চাঁদা তুলে নৈশ প্রহরীর ব্যবস্থা করেছেন। তার পরও বন্ধ হচ্ছে না চুরি, ডাকাতির ঘটনা। এ ব্যাপারে টাউন পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্ত্বে থাকা ইন্সস্পেক্টর গোলাম মাওলার সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলার চেষ্টা করলেও ফোন বন্ধ থাকায় তা সম্ভব হয়নি।

ফাঁড়ির এস.আই আলী আকবর বলছেন, ফোর্স সীমিত থাকার কারণে সন্ধ্যা থেকে ভোর ৫ টা পর্যন্ত শহরে একটি টহল টিম থাকে। বলুহর স্ট্যান্ডেও রাত ১০ টা পর্যন্ত পাবলিক পাহারার ব্যবস্থা রয়েছে।


দৈনিক সময় সংবাদ ২৪ ডট কম সংবাদের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি,আলোকচত্রি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে র্পূব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সর্ম্পূণ বেআইনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে কোন কমেন্সের জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।


Shares
error: Content is protected !!