| |

পটিয়ায় খলিলুর রহমান বালিকা হাই স্কুলের ৩২ বর্ষ পূর্তি ও পুণর্মিলনী

প্রকাশিতঃ 11:36 pm | January 19, 2018

পটিয়া (চট্টগ্রাম) থেকে সেলিম চৌধুরী : পটিয়ায় গতকাল ১৯ জানুয়ারী শুক্রবার খলিলুর রহমান বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৩২বর্ষ পূর্তি ও পুণর্মিলনী উৎসব ২০১৮ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

এতে সভাপতিত্ব করেন আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন বিশিষ্ট শিল্পপতি ও কেডিএস গ্রুপ চেয়ারম্যান আলহাজ¦ খলিলুর রহমান, প্রধান অতিথি ছিলেন পটিয়ার সাংসদ আলহাজ¦ সামশুল হক চৌধুরী, উদ্বোধক ছিলেন পটিয়া পৌরসভার মেয়র অধ্যাপক হারুনুর রশীদ, বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম আঞ্চলিক লোক-প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের উপ-পরিচালক মোসা: রোকেয়া পারভীন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: আবদুল্লাহ আল মামুন, পটিয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জসীম উদ্দিন খান, খলিলুর রহমান মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মুহাম্মদ আবু তৈয়ব।

এতে সারাদিন ব্যাপী অনুষ্ঠান সূচীর মধ্যে ছিল সকাল ৯ টায় উদ্বোধনী, ১০ টায় স্মৃতি চারণ, বিকাল ৩ টায় আলোচনা সভা, বিকাল ৫ টায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন ব্যান্ড দল ঝখঅঈক ও পলিশারমিন, টিসা, শুভ। এতে খলিলুর রহমান বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও প্রধান সমন্বয়কারী শামশুল ইসলাম ছিদ্দিক ও ৩২ বর্ষ পূর্তি ও পূণর্মিলনী উদ্যাপন পরিষদ আহবায়ক আকতার বেগম আঁখি সকল প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পটিয়ার সাংসদ আলহাজ¦ সামশুল হক চৌধুরী বলেন, দক্ষিণ চট্টগ্রামের নারী শিক্ষার অনন্য বিদ্যাপীঠ খলিলুর রহমান বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে উন্নয়নে ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহণ করি এবং এ স্কুল-কলেজে পাঠাগার ও ভবন নির্মাণ সহ একাধিক উন্নয়ন মূলক পরিকল্পনা বাস্তবায়নাধীনের পথে রয়েছে।

এ বিদ্যাপীঠের মাধ্যমে কেডিএস গ্রুপের চেয়ারম্যান আলহাজ¦ খলিলুর রহমান মৃত্যুঞ্জয়ী হয়ে থাকবে। তিনি আরো বলেন, শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায় আসার পর আমি পটিয়াকে একটি মডেল উপজেলা করতে ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহন ও বাস্তবায়ন করেছি। তিনি বর্তমান সরকারের আমলে তথ্য প্রযুক্তির ক্ষেত্রে আমূল পরিবর্তনের নানা দিক তুলে ধরে বলেন, ২০৪১ সালের মধ্যে দেশ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সমৃদ্ধ রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে উঠবে। যা করতে আমাদেরকে যোগ্য নাগরিক তৈরী করতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন শিল্পপতি আলহাজ¦ খলিলুর রহমান বলেন, সুশিক্ষা অর্জনের মাধ্যমেই শিক্ষার্থীদেরকে আদর্শ নাগরিক হতে হবে। বর্তমানে আধুনিক শিক্ষা ব্যবস্থায় হাতে কলমে অনুশীলন ও সার্বক্ষণিক অধ্যবসায়ের মাধ্যমে অভিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে হবে। অন্যথায় প্রতিযোগিতা থেকে শিক্ষার্থীদের ছিটকে পড়ার আশংকা রয়েছে। তাই শিক্ষার্থীদেরকে সার্বক্ষণিক শিক্ষা অর্জনে উদ্বুদ্ধ করতে শিক্ষক, অভিভাবক সহ সকলকে একযোগে কাজ করতে হবে।


দৈনিক সময় সংবাদ ২৪ ডট কম সংবাদের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি,আলোকচত্রি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে র্পূব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সর্ম্পূণ বেআইনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে কোন কমেন্সের জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।