| |

পদত্যাগ করলেন ফারমার্স ব্যাংকের চেয়ারম্যান মখা আলমগীর

প্রকাশিতঃ 2:23 pm | November 28, 2017

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ পরিচালনা পর্ষদ থেকে পদত্যাগ করেছেন বেসরকারি খাতের নতুন কার্যক্রমে আসা দ্য ফারমার্স ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর। একই সঙ্গে পদত্যাগ করেছেন অডিট কমিটির চেয়ারম্যান মাহবুবুলহক চিশতী। তাদের পদত্যাগপত্র ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ গ্রহণ করেছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

সোমবার রাত পৌনে ১০টার দিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের বিশেষ সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, পরিচালনা পর্ষদের নতুন চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়া নির্বাহী কমিটি, অডিট কমিটি ও ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা কমিটি পুনর্গঠিত হয়েছে।

তবে একটি সূত্র জানিয়েছে, ব্যাংকটির নতুন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন মোহাম্মদ মাসুদ। এর আগে তিনি ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদের সদস্য হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন। বাকিদের নাম জানা যায়নি।

জানা গেছে, ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের বিরুদ্ধে দায়িত্ব পালনে ব্যর্থতা ও বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশ লঙ্ঘনের জন্য পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। পুনর্গঠিত পর্ষদ ব্যাংকের আর্থিক অবস্থা উন্নয়নে সর্বাত্মক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ফারমার্স ব্যাংকে বেশ কিছুদিন ধরে তারল্য ঘাটতি বিরাজ করায় এবং আর্থিক সূচকসমূহের অবনতি ঘটায় জনগণের মধ্যে দ্বিধা বা সংকোচ তৈরি হয়। লক্ষ্য করা যাচ্ছে যে, বেশ কিছু আমানতকারী ব্যাংক থেকে অর্থ উত্তোলনের চেষ্টা করার ফলে ব্যাংকটির সমস্যা ঘনীভূত হচ্ছে। বিষয়টি বাংলাদেশ ব্যাংকের নজরে আসার পর প্রয়োজনীয় রেগুলেটরী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক জানায়, ব্যাংকের আমানতকারী এবং আন্তঃব্যাংক লেনদেনে অংশগ্রহণকারী সব পক্ষকে সার্বিক সহযোগিতা অব্যাহত রাখার জন্য আহ্বান করা যাচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংক ব্যাংকটির ওপর নজরদারি অব্যাহত রাখছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র শুভঙ্কর সাহা সোমবার রাতে যুগান্তরকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এর আগে গত রোববার রাতে ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ কে এম শামীমকে কেন অপসারণ করা হবে না, তা জানতে সাত দিনের সময় বেঁধে দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক।


দৈনিক সময় সংবাদ ২৪ ডট কম সংবাদের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি,আলোকচত্রি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে র্পূব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সর্ম্পূণ বেআইনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে কোন কমেন্সের জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।