| |

হালুয়াঘাটে শিশু কন্যাকে ধর্ষনের অভিযোগে পিতার বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিতঃ 4:08 pm | September 16, 2017

হালুয়াঘাট (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি : হালুয়াঘাটে চার সন্তানের জনক কর্তৃক নিজ শিশু কন্যাকে ধর্ষনের অভিযোগ হালুয়াঘাট থানায় মালাা দায়ের করা হয়েছে। ১৫ সেপ্টেম্বার ধর্ষিতা শিশুর মা বাদী হয়ে তার স্বামীর বিরোদ্ধে মামলাটি দায়ের করেন, যার নং ১২ । উপজেলার বাউসা গ্রামে গত বুধবার দিবাগত রাতে ধর্ষকের  নিজ বাড়িতে ঘটনাটি ঘটে।

ঘটনার পর থেকেই ধর্ষক পলাতক রয়েছন বলে স্থানীয়রা জানায়।

এজাহারে প্রকাশ, শাকুয়াই ইউনিয়নের উত্তর ইটাখলা বলজানা গ্রামের শফুর উদ্দিনের পুত্র হেলাল উদ্দিন (৩০) তার উরসজাত প্রথম কন্যা (১১) কৃষ্ঠপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে স্বদেশী ইউনিয়নের হরি রামপুর বাউসা গ্রামের ধর্ষকের নিজ বাড়িতে গত বুধবার দিবাগত রাতে ধর্ষণ করে।

ধর্ষিতার মা সাংবাদিকদের জানায়, ঘটনার দিন তিনি ডাক্তার দেখানোর জন্য মেয়েকে তার স্বামীর কাছে রেখে কৈচাপুর ইউনিয়নের মাইজপাড়া গ্রামের পিতার (সাইফুল ইসলাম) বাড়িতে চলে আসেন। তিনি বাড়িতে না থাকায় তার লম্পট স্বামী তার মেয়েকে ধর্ষণ করে। তিনি ঘটনাটি থানা পুলিশকে অবগত করে তার স্বামীর বিরোদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। ধর্ষক স্বামীর দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী জানান।

ধর্ষিতা শিশু জানায়, তার পিতা তাকে  রাতে কৃমির ঔষধের কথা বলে ১ টি ট্যাবলেট খাওয়ায় । ঘুমের ঘোরে প্রথমে  গভীর রাতে জোর পূর্বক ঘর থেকে বাইরে  নিয়ে ধর্ষন করে । অতপর  আনুমানিক ১ ঘন্টা পর রান্না ঘরে নিয়ে পূনরায় ধর্ষন করে । ঘটনাটি কারো কাছে বললে তাকে মেরে ফেলবে বলে হুমকি প্রদান করে। পরদিন শিশুটি তার নানার বাড়িতে এসে তার মায়ের সাথে  ঘটনাটি খুলে বলে। শুক্রবার ধর্ষিতাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে তার মা। শিশুটি তার পিতার শাস্তির দাবী করে।

এ বিষয়ে হালুয়াঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম মিঞা বলেন, তিনি ধর্ষিতা শিশুটি ও তার মায়ের কাছ থেকে ঘটনাটি শুনেছেন এবং ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছেন। এ ঘটনায় ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। ধর্ষককে আটকের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলে জানান।


দৈনিক সময় সংবাদ ২৪ ডট কম সংবাদের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি,আলোকচত্রি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে র্পূব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সর্ম্পূণ বেআইনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে কোন কমেন্সের জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।